বিশ্ব সভায় শেখ হাসিনার অসামান্য অবদানের জন্য বঙ্গবন্ধু পরিষদের বিবৃতি

66

বাংলাদেশের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনা জাতিসংঘের ৭৬তম সাধারণ অধিবেশনে যোগদানকল্পে যুক্তরাষ্ট্রে উপস্থিত হওয়ায় যুক্তরাষ্ট্রের প্রায় ৫০টি অঙ্গরাজ্য থেকে আগত অগনিত আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, সেচ্ছাসেবকলীগ, ছাত্রলীগ ও বঙ্গবন্ধু পরিষদসহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ যেভাবে তাকে প্রাণঢালা অভিনন্দন জানিয়েছেন তাতে বঙ্গবন্ধু পরিষদ আনন্দিত।

তার পিতার মতো জাতিসংঘে বার বার বাংলায় ভাষণ দিয়ে সমগ্র বাঙালি জাতিকে তিনি সম্মানিত করেছেন। যতবার তিনি জাতিসংঘে গিয়েছেন ততবারই তিনি বাংলাদেশের বাস্তব পরিস্থিতি বিশ্বসভায় সততার সাথে তুলে ধরেছেন। জলবায়ু, বিদ্যমান কোভিড-১৯ সংক্রমণ, বিশ্বের অপেক্ষাকৃত দরিদ্র দেশসমূহ যাতে সঠিকভাবে ভ্যাকসিন পায় তার জোর দাবী জানিয়েছেন। সকল সংকট সমাধান করে বাংলাদেশে গনতন্ত্র এবং গনতান্ত্রিক ভাবে ক্ষমতা হস্তান্তরের প্রক্রিয়া যে চলমান আছে তা সঠিক ভাবে তুলে ধরেছেন। তার সততা, রাষ্ট্র পরিচালনায় অসামান্য দক্ষতার কারনে বাংলাদেশ আজ উন্নয়নের রোল মডেল হিসেবে বিবেচিত হচ্ছে। এসডিজি বাস্তবায়নের সক্ষমতার কারনে তাকে যে “ক্রাউন জুয়েল বা মুকুট মনি” পুরস্কার প্রদান করা হয়েছে তার জন্য বঙ্গবন্ধু পরিষদ জাতিসংঘকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানাচ্ছে।

পরিষদের নেতারা আশা করেন যে, তার এবারের সফর দেশের জন্য সুনাম বয়ে আনবে এবং বিশ্বের গরীব-দুঃখী মানুষের প্রসঙ্গ তুলে ধরে বিশ্ব শান্তি বিনির্মানে অসামান্য অবদান রাখবে। বিশেষ করে রোহিঙ্গা সংকট সম্পর্কে তিনি স্পষ্ট ভাবে বিশ্ব সভাকে জানিয়ে দিয়েছেন যে মানবিক কারনে বাংলাদেশে স্বদেশ থেকে বিতারিত প্রায় ১১ লক্ষ রোহিঙ্গাকে কয়েক বছর আশ্রয় দিয়ে আসছেন। বাংলাদেশ সবসময় মনে করে রোহিঙ্গারা নিজের দেশে নাগরিকত্ব নিয়ে নিরাপদে সম্মানজনক অবস্থায় ফিরে যাবে। এ ব্যাপারে জাতিসংঘের ভূমিকা যথেষ্ট বলে বাংলাদেশ বিবেচনা করে না। তাই মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর দাবী জাতিসংঘ আরও দৃঢ়তা ও নিষ্ঠার সাথে ভূমিকা পালন করে রোহিঙ্গা সমস্যা দ্রুত সমাধান করবে। করোনা মোকাবেলায় বিশ্বের সকল দেশে সমন্বিত প্রয়াস বিশেষ করে গরীব দেশসমূহ যাতে ভ্যাকসিনের যথাযথ হিস্যা লাভ করে এবং ভ্যাকসিনের ক্রয়মূল্য তাদের ক্ষমতার ভিতরে থাকে। প্রয়োজনবোধে অপেক্ষাকৃত দরিদ্র জনগোষ্ঠীকে বিনামূল্যে ভ্যাকসিন সরবরাহ করার আহ্বান জানিয়েছেন। জলবায়ু সংকট মোকাবেলায় শিল্পোন্নত ধনী দেশসমূহ, যারা মূলত কার্বন ডাই-অক্সাইডে দূষণের জন্য দায়ী তাদের আরও বেশি করে ক্লাইমেট ফান্ডে অর্থ সরবরাহের আহবান জানিয়েছেন। তিনি বিশ্ব শান্তি প্রতিষ্ঠার অগ্রদূত হিসেবে পৃথিবীর সকল দেশকে যুদ্ধ নয়, আলোচনার মাধ্যমে বিদ্যমান সকল সংকট সমাধানের আহবান জানিয়েছেন। বিশ্ব শান্তি যাতে কোনো ভাবে বিঘ্নিত না হয় জাতিসংঘকে সে ব্যাপারে তীক্ষ্ণ দৃষ্টি রাখবার অনুরোধ জানিয়েছেন।

Comments
[covid19 country="Bangladesh" title="Bangladesh"]