বিমানবন্দরে কবে নাগাদ ল্যাব স্থাপন জানাতে পারলেন না ২ মন্ত্রী

10

সংযুক্ত আরব আমিরাতগামী কয়েক হাজার প্রবাসীদের জন্য কবে নাগাদ হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে আরটি-পিসিআর ল্যাব স্থাপন হতে পারে সে বিষয়ে নিশ্চিত করে কিছু জানাতে পারেননি প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী ইমরান আহমদ এবং স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী জাহিদ মালেক।

ঢাকা বিমান বন্দরে ল্যাব স্থাপনের কাজ পরিদর্শন করতে গিয়ে আজ মঙ্গলবার সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে ল্যাব স্থাপনের বিষয়ে কথা বলেন তারা।

কবে নাগাদ বিমানবন্দরে করোনার পরীক্ষাগার চালু হবে এমন প্রশ্নের জবাবে প্রবাসী কল্যাণমন্ত্রী বলেন, ‘এটা তো এক সপ্তাহ আগে হওয়া উচিত ছিল। কিন্তু বাস্তবে সেটা হয়নি। বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্টতা থাকায় একটু সময় লাগছে। এই সমস্যার আজ মোটামুটি একটা সমাধান হয়েছে।’

ছাদে ল্যাব স্থাপনের অনুকূল পরিবেশ তৈরি হওয়ার আগে সাময়িকভাবে বিমানবন্দরের ভেতরেই ল্যাব স্থাপন করা হবে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ‘পরীক্ষার জন্য লাগবে পরীক্ষাগার, সেই পরীক্ষাগার বসাতে জায়গা লাগবে। দ্রুত এই কাজ শুরু করার জন্য বিমানবন্দরের ভেতরে একটি জায়গা দেওয়া হয়েছে। ৬টি প্রতিষ্ঠানকে কাজ দেওয়া হয়েছে, তারা আপাতত ছোট আকারে সেখানে পরীক্ষাগার বসাবে। যত তাড়াতাড়ি সম্ভব এ কার্যক্রম শুরু করা হবে।’

সংযুক্ত আরব আমিরাতের শর্ত অনুযায়ী, দেশটিতে প্রবেশ করতে হলে বিমানে ওঠার ৬ ঘণ্টা আগে যাত্রীদের বিমানবন্দরে করোনা পরীক্ষা করতে হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গত ৬ সেপ্টেম্বর ২-৩ দিনের মধ্যে ঢাকাসহ দেশের ৩টি আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে এই ল্যাব স্থাপনের নির্দেশ দেন।

শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পার্কিং ভবনের ছাদে ল্যাব স্থাপনের উদ্যোগ নেওয়া হলেও এতে আপত্তি জানিয়েছে ল্যাব স্থাপনে অনুমোদন পাওয়া ৭টি প্রতিষ্ঠান।

এই সংকট নিরসন ও নতুন স্থান নির্ধারণের বিষয়ে আজ বিমানবন্দরে যান দুই মন্ত্রী। এসময় তাদের সঙ্গে আরও উপস্থিত ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব আহমদ কায়কাউস, প্রবাসী কল্যাণ সচিব ড. আহমেদ মুনিরুছ সালেহীন, বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান এয়ার ভাইস মার্শাল মো. মফিদুর রহমানসহ অনেকে।

এ বিষয়ে বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের (বেবিচক) চেয়ারম্যান এয়ার ভাইস মার্শাল এম মফিদুর রহমান বলেন, ‘করোনার পরীক্ষাগার স্থানান্তরের সিদ্ধান্ত সরকারিভাবে হয়েছে। এ কারণে নতুন করে সংযুক্ত আরব আমিরাত কর্তৃপক্ষকে স্ট্যান্ডার্ড অপারেটিং প্রসিডিউর আবার দিতে হবে কিনা আমি নিশ্চিত নই।’

Comments
[covid19 country="Bangladesh" title="Bangladesh"]