’পানির দরে’ কোরবানির পশুর চামড়া

19

সরকারের দাম বেধে দেয়াসহ রফতানির ঘোষণা আসে ঈদে কোরবানির পশুর চামড়া কেনাবেচা নিয়ে, অথচ পানির দরে চামড়া বিকিকিনি হয়েছে বলে অভিযোগ ব্যবসায়ীদের।

করোনা পরিস্থিতির মধ্যে এবারে পশু কোরবানি অর্ধেকে নেমে এসেছে। ঈদের আগেরদিনও অনেকে কিনতে পারেননি কোরবানির পশু। ফলে রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন জেলায় শনিবার ঈদের দিনও পশু বেচাকেনা হয়েছে। শেষ মূহুর্তে গরু খামারিরা কোরবানির পশু বিক্রি করে খুব একটা লাভ করতে পারেননি বলে জানিয়েছেন তারা। অথচ প্রতিবছর অন্যান্য সময়ের চেয়ে শুধুমাত্র এই ঈদেই ৬০ ভাগ পশু কোরবানি হয় দেশে।

রাজধানীসহ বিভিন্ন জেলায় খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, গরুর চামড়া আকারভেদে ১৫০ থেকে ৬০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। ছাগলের চামড়ার দাম ২-১০ টাকা।

রাজধানীর জিগাতলা ট্যানারি মোড় ও পোস্তার আড়তে শনিবার দুপুর থেকে বিকাল ঘুরে এমন চিত্রই দেখা গেল। সব জায়গাতেই সরকার নির্ধারিত দামের চেয়ে অনেক কমে বিক্রি হচ্ছে কোরবানির পশুর চামড়া। অথচ গতবারের চেয়েও কোরবানির পশুর চামড়ার দাম এবার ২০ থেকে ২৯ শতাংশ কমিয়ে ধরা হয়েছে।

আড়তদার ও ট্যানারির মালিকেরা বলছেন, চলতি বছর গতবারের চেয়ে ৩০-৩৫ শতাংশ কম চামড়া আসবে। তাই চামড়ার বেশ চাহিদা রয়েছে। তার পরও চামড়ার দাম কম হওয়ার পেছনে পুরোনো যুক্তিই খাড়া করছেন তারা।

তারা বলছেন, গত বছর চামড়ার বাজারে ধস নামে। এ বছর মূল্য আরও কম।

চামড়ার বাজার ধস ও মূল্য কম হওয়ায় আলেম সমাজ ক্ষোভ ও হতাশা প্রকাশ করেছেন। অনেকে বলেছেন, চামড়ার বাজার দর না থাকায় এতিম মাদ্রাসায় আর্থিক সংকট দেখা দিয়েছে।

বাণিজ্য মন্ত্রণালয় গেল সপ্তাহে চামড়াশিল্পের উদ্যোক্তাদের সঙ্গে বৈঠক করে কোরবানির পশুর চামড়ার দাম নির্ধারণ করে। ঢাকায় লবণযুক্ত গরুর চামড়ার দাম প্রতি বর্গফুট ৩৫ থেকে ৪০ টাকা ধরা হয়েছে। আর ঢাকার বাইরে ধরা হয়েছে প্রতি বর্গফুট ২৮ থেকে ৩২ টাকা। এ ছাড়া সারা দেশে খাসির চামড়া গত বছরের প্রতি বর্গফুট ১৮ থেকে ২০ টাকা থেকে কমিয়ে ১৩ থেকে ১৫ টাকা করা হয় । আবার দরপতন ঠেকাতে ২৯ জুলাই কাঁচা ও ওয়েট-ব্লু চামড়া রপ্তানির অনুমতি দেয় মন্ত্রণালয়।

গতবছরের তিক্ত অভিজ্ঞতায় এবার মৌসুমি ব্যবসায়ীদের দৌড়ঝাঁপ খুব একটা দেখা যায়নি। আকারভেদে ৪০০-৬০০ টাকায় গরুর চামড়া কিনেছেন। তবে কলাবাগান ও জিগাতলায় ব্যবসায়ীরা কেনা দামের কাছাকাছি বলায় বিক্রি করেননি। বড় গরুর চামড়া গড়ে ৩৫-৪০ বর্গফুট, মাঝারি আকারের গরুর চামড়া গড়ে ২৫-৩০ এবং ছোট আকারের গরুর চামড়া গড়ে ১৬-২০ বর্গফুটের হয়। তাতে সরকারের নির্ধারিত দাম হিসাব করলে বড় চামড়া কমপক্ষে দেড় হাজার টাকা, মাঝারি চামড়া হাজার টাকা ও ছোট চামড়ার দাম হয় কমপক্ষে ৬০০ টাকা। তার থেকে প্রক্রিয়াজাত, শ্রমিকের মজুরি ও আড়তদারের মুনাফা বাদ দিলেও যা দাঁড়ায় তার কাছাকাছি দামেও চামড়া বিক্রি হয়নি।

চামড়ার কম দামের কারণ জানতে চাইলে বাংলাদেশ হাইড অ্যান্ড স্কিন মার্চেন্ট অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি আফতাব খান  বলেন, কাঁচা চামড়া যে দামে বিক্রি হচ্ছে তা ঠিকই আছে। কারণ প্রতি বর্গফুট চামড়া প্রক্রিয়াজাত করতে ৮ টাকা খরচ হয়। তা ছাড়া আড়তদারেরা নগদ অর্থের সংকটে আছেন। বেশির ভাগ ট্যানারির মালিক আড়তদারদের বকেয়া পরিশোধ করেননি।

দাম কম হওয়ার বিষয়ে বাংলাদেশ ট্যানার্স অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক সাখাওয়াত উল্লাহ বলেন, ছোট চামড়াই বেশি আসছে এবার। চামড়া প্রক্রিয়াজাতে লবণের খরচ আছে। কাটিংয়েও বাদ যাবে কিছু চামড়া। তা ছাড়া শেষ পর্যন্ত কী দাম পাওয়া যাবে, তা নিয়ে আশঙ্কায় আছেন অনেক ব্যবসায়ী।

আড়তদারদের বকেয়ার বিষয়ে সাখাওয়াত উল্লাহ বলেন, ২০১৭ সালে হাজারীবাগ থেকে সাভারের হেমায়েতপুরে ট্যানারি স্থানান্তরের পর থেকেই ট্যানারির মালিকেরা আর্থিক সংকটে আছেন। সে জন্য আড়তদারদের পাওনা সময়মতো পরিশোধ করতে পারছেন না অনেকে।

Comments
[covid19 country="Bangladesh" title="Bangladesh"]