ছাত্রলীগ নেতার বিরুদ্ধে অপহরণের অভিযোগ

8

চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগের এক নেতাসহ চার জনেরর বিরুদ্ধে মোহাম্মদ আল মামুন তালুকদার নামের এক ব্যবসায়ীকে অপহরণের অভিযোগ উঠেছে। এই ঘটনায় অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে র‌্যাপিড একশন ব্যাটেলিয়ন-৭ এবং চট্টগ্রাম চীফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে অভিযোগ দেওয়া হয়েছে।

অভিযোগপত্রে উল্লেখ করা ওই ছাত্রলীগ নেতার নাম মামুনর রহমান চৌধুরী। তিনি চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক। তার সঙ্গে আরও জড়িত রয়েছেন- বাঁশখালী উপজেলার রায়ছাটা এলাকার শামশুল আলমের ছেলে আরিফুর রহমান শাকিল (২৮), বাঁশখালীর দীঘিরপাড় এলাকার জাফর আহমদের ছেলে সিফাত (৩০), মো. ইমন (২৯)।

এসব অভিযোগপত্র যাচাই করে জানা যায়, মো. আল মামুন তালুকদার নামের এক ব্যক্তি বাঁশখালী থেকে মুরগির খাদ্যর বকেয়া টাকার জন্য গত ৯ সেপ্টম্বর নগরীর বহদ্দারহাটে আসেন। পাওনা টাকার জন্য গেলে ব্যবসায়ী জসিম ডেকে নিয়ে পাঁচলাইশ মডেল থানার সামনে এ কে কনভেশন হলের সামনে যেতে বলেন। উক্ত স্থানে যাওয়ার সাথে সাথে ১০-১২ জন লোক অস্ত্র ধরে আরকান হাউজিং সোসাইটির ১২ তলা একটি ভবনের ছাদে নিয়ে যায়। বিভিন্নভাবে মারধর করে এবং রক্ষিত ১ লাখ ৭৫ হাজার টাকা নিয়ে নেয়। এ সময় জোরপূর্বক কয়েকটি চেক এবং স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর নেয়া হয়। পরবর্তীতে ভুক্তভোগী আল মামুন তালুকদারকে ছেড়ে দেওয়া হয়।

ঘটনার বিষয়ে জানতে চাইলে আল মামুন তালুকদার বলেন, আমি ঘটনার পর থানায় গিয়ে অভিযোগ দিয়ে আসি। পরে আমাকে ফোন দিয়ে বলে থানায় আসলে আবার হামলা করা হবে। পরে ভয়ে আমি আর যাইনি। আমাকে মারধর ও টাকা নেওয়ার বিষয়ে আমি বিস্তারিত অভিযোগপত্রে দিয়েছি।

তিনি আরও বলেন, আমি র‌্যাপিড একশন ব্যাটেলিয়ন-৭ এবং চট্টগ্রাম চীফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতেও অভিযোগ দিয়েছি।

এ বিষয়ে পাঁচলাইশ থানার অফিসার ইনচার্জ জাহিদুল কবির বলেন, সে প্রথম দিন এসে সবকিছু জানিয়ে গেছিল। যদিও আমি ছিলাম না। পরের দিন তাকে আবারও আসতে বলা হয়েছিল। কিন্তু সে আসেনি।

অভিযোগের বিষয়ে দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মামুনুর রহমান চৌধুরী বলেন, আমি ঘটনার সময় ঢাকায় ছিলাম। প্রতিহিংসাবশত আমাকে জড়ানো হয়েছে।

চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি বোরহান উদ্দীন বলেন, আমি বিষয়টা শুনেছি। এ ঘটনায় যদি সে অভিযুক্ত প্রমাণিত হয় তাহলে সাংগঠনিক ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।

অভিযোগের বিষয়ে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয় বলেন, আইন শৃঙ্খলা বাহিনী তার বিরুদ্ধে অভিযোগের সত্যতা পেলে আমরা তাকে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেব।

Comments
[covid19 country="Bangladesh" title="Bangladesh"]