‘দুদকের নোটিশ অগ্রহণযোগ্য, আপত্তিকর’

13

ডেস্ক রিপোর্ট: গত ২৩ জুন ‘লন্ডন প্রবাসী দয়াছের অডিও সংলাপে দুদকের ওরা কারা’ শিরোনামে বাংলা ট্রিবিউনে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ হয়। প্রতিবেদনটির সঙ্গে কথোপকথনের অডিও সংযুক্ত করা হয়। প্রতিবেদনটি করেন বাংলা ট্রিবিউনের বিশেষ প্রতিনিধি দীপু সারোয়ার। 

ঘুষ লেনদেন নিয়ে লন্ডন প্রবাসী আব্দুল দয়াছ,পুলিশের বিতর্কিত ডিআইজি মিজানুর রহমান ও দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) অবসর প্রস্তুতিকালীন ছুটিতে থাকা পরিচালক আব্দুল আজিজ ভূইয়ার মধ্যকার ওই অডিও সংলাপে ৬ জনের নাম আলোচিত হয়। অডিও সংলাপের ঘটনা তদন্তও করছে দুদক। আর ওই তদন্তের সূত্র ধরে দীপু সারোয়ারকে সাক্ষী দেওয়ার এবং বক্তব্য শ্রবণের জন্য নোটিশ পাঠায় দুদক। 

দুদক আইন ও বিধি এবং ফৌজদারী কার্যবিধির নানা ধারা উল্লেখ করে ডাকা ওই নোটিশে বলা হয়, উপস্থিত না হলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে। দুদকের পাঠানো ওই নোটিশে আপত্তিকর ভাষা ব্যবহারের প্রতিবাদে চলছে বিক্ষোভ। শুধু ঢাকা নয়, ঢাকার বাইরে এ নিয়ে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ কর্মসূচী পালন করেছেন সাংবাদিকরা। সাংবাদিকদের বিভিন্ন সংগঠনের নেতৃবৃন্দ মাঠের সাংবাদিকদের কর্মসূচীর সাথে একাত্মতা প্রকাশ করেছেন।

 অপরাধ বিষয়ক অনুসন্ধানী সাংবাদিকতায় স্বনামধন্য সাংবাদিক দীপু সারোয়ার। দীর্ঘ সাংবাদিকতা জীবনে দৈনিক সংবাদ, বাংলাবাজার পত্রিকা, দৈনিক করতোয়ার ঢাকা অফিস, একুশে টেলিভিশন, বৈশাখী টেলিভিশনসহ বেশ কয়েকটি গণমাধ্যমে কাজ করেছেন। বর্তমানে তিনি দেশের শীর্ষস্থানীয় অনলাইন সংবাদমাধ্যম বাংলা ট্রিবিউনের বিশেষ প্রতিনিধি। দীপু সারোয়ার বাংলাদেশ ক্রাইম রিপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের (ক্র্যাব)সাধারণ সম্পাদক।

দুদকের নোটিশের বিষয়ে একান্ত সাক্ষাৎকার দিয়েছেন সাংবাদিক দীপু সারোয়ার। নোটিশটি অগ্রহণযোগ্য, আপত্তিকর বলে মন্তব্য করেছেন। বলেছেন, দুদক সহযোগীতা চেয়ে চিঠি দিতে পারে। আর সহযোগীতা করতে আমারও কোন আপত্তি নেই। তবে আইনি বেড়াজালের মধ্যে থেকে সাক্ষী হতে রাজী না।  

প্রশ্ন: দুদকের নোটিশে আপনাকে আইনি এখতিয়ার খাটিয়ে সাক্ষ্য দিতে তলব করা হয়েছে এবং সাক্ষ্য না দিলে আইনানুগ কার্যধারা গ্রহণের হুমকি দেওয়া হয়েছে। এই নোটিশের ব্যাপারে আপনার প্রতিক্রিয়া কী?

দীপু সারোয়ার: দুদক আইন ও বিধি এবং ফৌজদারী কার্যবিধির নানা ধারা উল্লেখ করে সাক্ষ্য দেওয়ার জন্য দুদক থেকে নোটিশ দেয়া হয়েছে আমাকে। একজন রিপোর্টার হিসেবে এই নোটিশের ভাষা আমার কাছে অগ্রহণযোগ্য ও আপত্তিকর বলে মনে হয়েছে। তারা আমার সহযোগিতা চাইতে পারে আর আমিও সহযোগিতা করতে প্রস্তুত। তবে দুদকের নোটিশ প্রত্যাহার করে সহযোগীতা চেয়ে নতুন করে নোটিশ পাঠাতে হবে। দুদকের নোটিশের ভাষা নিয়ে আপত্তি শুধু আমার না, আমার অফিসও নোটিশের ভাষা নিয়ে আপত্তি তুলেছে। মাঠের সাংবাদিক ও বিভিন্ন সাংবাদিক সংগঠনের নেতারাও এ নিয়ে আপত্তি তুলেছেন, অগ্রহণযোগ্য বলে মন্তব্য করেছেন। 

প্রশ্ন: দুদক যেভাবে সাক্ষ্যের জন্য আপনাকে তলব করেছে তাতে কী আপনি ভীত? 

দীপু সারোয়ার: ‘এখানে আসলে ভয় ভীতির কোন বিষয় নাই। বিষয়টি সাংবাদিকদের মর্যাদার সাথে সংশ্লিষ্ট। সাক্ষ্য দেওয়ার জন্য প্রতিবেদক প্রতিবেদন লেখেন না। আর তদন্ত করাও তার কাজ না। তবে কোন প্রতিবেদকের প্রতিবেদন যদি কোন ঘটনার তদন্তে সহায়ক হয় সেক্ষেত্রে সহযোগীতা করা যেতে পারে বলে মনে করি।’ 

প্রশ্ন: আপনাকে পাঠানো আপত্তিকর এই নোটিশের নেপথ্যে বিশেষ কোনও কারণ আছে কী? 

দীপু সারোয়ার: ‘এটি আমার জানা নেই।’

প্রশ্ন: দুদকের দেওয়া নোটিশ নিয়ে সাংবাদিক সমাজ আন্দোলন করছে। অনেক সংগঠনই নোটিশ প্রত্যাহারের দাবি জানিয়েছে৷ আপনি নিজেও নোটিশের আপত্তিকর অংশটুকুর পরিবর্তনের দাবি জানিয়েছেন। কিন্তু দুদক এখনও আগের অবস্থানেই আছে। তাহলে সমাধান কোথায়? 

প্রশ্ন: ‘মাঠের কর্মরত সাংবাদিকরা দুদকের এই নোটিশের ভাষা আপত্তিকর মনে করছে, এই কারণে তারা মাঠে আছে। সাংবাদিকদের বিভিন্ন সংগঠন থেকেও একাত্বতা প্রকাশ করা হয়েছে। দুদক জাতীয় প্রতিষ্ঠান। আর, সাংবাদিকরা দুর্নীতি বিরোধী, দুদক বিরোধী নয়। যে ধরণের নোটিশ পাঠানো হয়েছে, সেই নোটিশ প্রত্যাহার করে ভাষার প্রতি যত্নশীল হয়ে নতুন করে সহযোগিতা চেয়ে চিঠি পাঠালে, অবশ্যই সহযোগিতা করবো।’

প্রশ্ন: আপনি তো অনুসন্ধানী সাংবাদিক। দুদকের নোটিশ অনুসন্ধানী সাংবাদিকতার ঝুঁকি বলে মনে করেন কী?  

দীপু সারোয়ার: ‘যে কোন ধরণের হুমকি বা চাপ অনুসন্ধানী সাংবাদিকতার জন্য অন্তরায়।’

প্রশ্ন: জানা গেছে সরকারের বিভিন্ন মহল থেকে চাপে রাখা হচ্ছে আপনাকে? একথার সত্যতা কতটুকু? 

দীপু সারোয়ার: ‘সরকার দুর্নীতি দমনের পক্ষে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দুর্নীতির বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি গ্রহণ করেছেন। সেক্ষেত্রে দুর্নীতি বিরোধী প্রতিবেদন লেখার জন্য চাপ আসার কথা নয়। আমার উপর কোন চাপ নেই।’ 

প্রশ্ন: যদি দুদক আপনার বিরুদ্ধে মামলা করে, তাহলে কিভাবে মোকাবিলা করবেন? 

দীপু সারোয়ার: ‘আইনি ভাবেই মোকাবিলা করবো।’