বশেমুরবিপ্রবি ভিসি স্বৈরাচারী; পদত্যাগ ডুজার

10

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির (বশেমুরবিপ্রবি) উপাচার্য অধ্যাপক খন্দকার নাসির উদ্দীনের কর্মকাণ্ড ‘ভিসি সুলভ আচরণ’ মন্তব্য করে তাকে ‘স্বৈরাচারী’ বলে আখ্যা দিয়েছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতির (ডুজার) সভাপতি রায়হানুল ইসলাম আবির।

সোমবার (১৬ সেপ্টেম্বর) দুপুর একটার দিকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র শিক্ষক কেন্দ্রে (টিএসসি) সন্ত্রাস বিরোধী রাজু ভাস্কর্যে পাদদেশে এক মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশে উপাচার্য নাসিরকে নিয়ে এসব মন্তব্য করেন আবির।

সম্প্রতি বশেমুরবিপ্রবি শিক্ষার্থী ও বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মরত সাংবাদিক ফাতেমা তুজ জিনিয়া সহ কয়েকজন শিক্ষার্থীকে বহিষ্কার করায় বিশ্ববিদ্যালয় উপাচার্যের বিরুদ্ধে এই মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশের আয়োজন করে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ।

ফাতেমা তুজ জিনিয়া সহ বহিষ্কৃত শিক্ষার্থীদের ছাত্রত্ব ফিরিয়ে না দিলে এবং বিভিন্ন সময় ক্যাম্পাসে সাংবাদিকদের ওপর হওয়া হামলার বিচার দাবি করেন ডুজা সভাপতি। অন্যথায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতি দেশের সকল বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মরত সাংবাদিক ও সাংবাদিক সমিতি নিয়ে বশেমুরবিপ্রবি প্রশাসনের বিরুদ্ধে কঠোর আন্দোলনে যাওয়ার হুশিয়ারি দেন আবির।

মানববন্ধনে আবির বলেন, ‘আমাদের এই দাবি নিয়ে এখানে আসার কথা ছিলো না। কিন্তু বশেমুরবিপ্রবি’র স্বৈরাচার ভিসি, স্বৈরাচার বললাম এজন্য যে উনি যেসব কাজ করেছেন, সেগুলো ভিসি সুলভ আচরণ নয়, তার স্বৈরাচারী কর্মকান্ডের জন্য এখানে আমাদের আজ রাজু ভাস্কর্যে দাঁড়াতে হয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘শুধু সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে লেখার কারণে একজন শিক্ষার্থীকে বহিষ্কার করা হয়েছে। এর আগেও ক্লাসরুম অপরিস্কার নিয়ে লেখার কারণে কয়েকজন শিক্ষার্থীকে বহিষ্কার করা হয়েছে। যেখানে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আমাদের মতপ্রকাশের স্বাধীনতা দিয়েছেন, মিডিয়ার স্বাধীনতা দিয়েছেন, কথা বলার স্বাধীনতায় বাঁধা না দিতে বলেছেন। এছাড়া, সংবিধানে স্পষ্ট উল্লেখ আছে মত প্রকাশের স্বাধীনতার কথা। সেখানে কিভাবে অন্যায়ভাবে শিক্ষার্থীদের বহিষ্কার করে তাদের মত প্রকাশের স্বাধীনতা হরণ করা হয়? শিক্ষার্থীকে বহিস্কার করা হয়? আমরা এর তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছি।’

তিনি আরও বলেন, ‘ইতোমধ্যে বিভিন্ন পত্রপত্রিকায় আসছে ভিসি সেখানকার ছাত্রসংগঠনগুলোকে ব্যবহার করে একটি গুন্ডা বাহিনী গঠন করেছে। সচেতন শিক্ষার্থীদের কন্ঠরোধ করার জন্য তাদের লেলিয়ে দেওয়া হয়। কিছুক্ষন আগে আমরা জানতে পেরেছি যে, সর্বশেষ উক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের আলোকিত বাংলাদেশের সাংবাদিক শামস ই জেবিনের উপর রাশা ও সাজিদ নামে দুই গুন্ডা হামলা চালিয়েছে।’

মানববন্ধনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মাহদী আল মুহতাসিম (নিবিড়) বলেন, ‘আমাদের রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ দলিল সংবিধানে আমাদের মত প্রকাশের স্বাধীনতা নিশ্চিত করা আছে। সেখানে ভিসি নাসির উদ্দীন শিক্ষার্থীদের অন্যায়ভাবে বহিষ্কার করে সংবিধান লঙ্ঘন করেছে।তার এসব কাজ অবৈধ ও স্বৈরাচারী।’

এসময় তিনি উপাচার্য নাসিরের কর্মকাণ্ডের তীব্র নিন্দা জানিয়ে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে যথাযথ বিচার দাবি করেন।

মানববন্ধনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের সভাপতি আমিনুল ইসলাম বুলবুল ও সাধারণ সম্পাদক আল মামুন সহ সংগঠনটির অর্ধ শতাধিক নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন।

প্রসঙ্গত, গত ২২ আগস্ট প্রতিবেদন তৈরির জন্য উপাচার্য অধ্যাপক ড. খোন্দকার নাসির উদ্দিনের বক্তব্য নিতে তার কার্যালয়ে যান ‘ডেইলি সান’ পত্রিকার ক্যাম্পাস প্রতিবেদক ফাতেমা তুজ জিনিয়া। এ সময় উপাচার্য তাকে বিশ্ববিদ্যালয় নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে দেওয়া একটি স্ট্যাটাসের ব্যাখা চান। কর্তব্যরত সাংবাদিক স্ট্যাটাসের ব্যাখা দেন। কিন্তু উপাচার্য তাকে হুমকি-ধামকি দেন ও অশোভন আচরণ করেন। এরপর গত ১১ সেপ্টেম্বর বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার স্বাক্ষরিত এক আদেশে ফাতেমা তুজ জিনিয়াকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়।