ঢাবির পাঁচ শিক্ষককে চাকরিচ্যুত

47

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) পাঁচজন শিক্ষককে চাকরিচ্যুত করা হয়েছে। আজ বুধবার রাতে বিশ্ববিদ্যালয়ের সর্বোচ্চ নীতিনির্ধারণী বৈঠক সিন্ডিকেট সভায় এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

চাকরিচ্যুতের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন একাধিক সিন্ডিকেট সদস্য।

বিশ্ববিদ্যায়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামানের সভাপতিত্বে এই সিন্ডিকেট সভা অনুষ্ঠিত হয়।

একই সঙ্গে দুজন কর্মচারীকেও চাকরিচ্যুত করা হয়েছে। এদের একজনের বিরুদ্ধে ধর্ষণ এবং আরেকজনের বিশ্ববিদ্যালয়ের নিয়ম ভঙ্গের কারণে বলে জানা গেছে।

তবে চাকরিচ্যুত শিক্ষক এবং কর্মচারীদের নাম তাৎক্ষণিক জানা যায়নি।

চাকরিচ্যুতের বিষয়টি নিশ্চিত করে সিন্ডিকেট সদস্য অধ্যাপক হুমায়ন কবির বলেন, পাঁচজন শিক্ষককে চাকরিচ্যুত করা হয়েছে। একই সঙ্গে দুইজন কর্মচারীকেও। আমি বাইরে আছি। নামগুলো এখনি আমার মনে নেই।

চাকরিচ্যুতের কারণ জানিয়ে উপাচার্য অধ্যাপক আখতারুজ্জামান বলেন, যেসব শিক্ষক বিদেশে গিয়ে আর ফিরে আসেনি তাদেরকে আমরা বারবার ফিরে আসতে বলেছি। কিন্তু তারা ফিরে আসেনি। তাদের পাঁচজনকে চাকরিচ্যুত করা হয়েছে। এছাড়া দুই কর্মচারীকেও চাকরিচ্যুত করা হয়েছে। তাৎক্ষণিকভাবে নামগুলো বলতে পারেননি।

তিনি আরও বলেন, কেউ যদি বিশ্ববিদ্যলয়ের নিয়ম না মানে তাদের তো বিশ্ববিদ্যালয়ে থাকা উচিত নয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের নিয়ম ভেঙ্গে কোন কাজ করবে তাদের বিরুদ্ধে আইন অনুযায়ী সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হবে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের বেশ কয়েকজন শিক্ষকের বিরুদ্ধে গবেষণা চৌর্যবৃত্তি করে পিএইচডি ডিগ্রি নেওয়া অভিযোগ আছে। যদিও আজকের সিন্ডিকেট সভায় তাদের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়ার কথাও ছিল বলে বেশ কয়েকজন সিন্ডিকেট সদস্য জানিয়েছিলেন। এ বিষয়ে অধ্যাপক আখতারুজ্জামান বলেন, বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করা হয়নি। আগামী বৈঠকে এটি নিয়ে আলোচনা হবে।