এরশাদের প্রেতাত্মা মশিউর রহমান রাঙ্গার রাজনৈতিক ঔদ্ধত্যের বিচার চাই

23

মোঃ আবুল হাসনাত মিল্টন: বাংলাদেশের রাজনীতিতে স্বৈরশাসক জেনারেল জিয়ার উত্তরসূরী দ্বিতীয় স্বৈরশাসক লে জে হো মো এরশাদের ঘাতক বাহিনীর গুলিতে ১৯৮৭ সালে নিহত হন গণতন্ত্রের মূর্ত প্রতীক নূর হোসেন। বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সৈনিক নূর হোসেনের এই আত্মত্যাগকে জাতি আজো শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করে।

অথচ গতকাল জাতীয় পার্টির আলোচনা সভায় এরশাদের প্রেতাত্মা মশিউর রহমান রাঙ্গা শহীদ নূর হোসেনকে ইয়াবা-ফেন্সিডিল খোর বলে চরম অপমান করেছেন। কোন সুস্থ চিন্তার অধিকারী ব্যক্তির পক্ষে এ ধরণের বক্তব্য প্রদান সম্ভব বলে মনে হয় না, বরং বক্তব্য প্রদানের সময় রাঙ্গা সাহেব নিজেই মাদকের ঘোরে ছিলেন কি না সেই পরীক্ষাটি করা জরুরী। কোন দ্রব্যগুনের প্রভাবে রাঙ্গা সাহেব ভুলে গেলেন যে ১৯৮৭ সালে বাংলাদেশে ইয়াবা নামে কোন মাদক পাওয়া যেতো না।

সামরিক স্বৈরশাসন বিরোধী আন্দোলনের কর্মীদের পক্ষ থেকে আমরা রাজনীতির কুলাঙ্গার ম র রাঙ্গার বক্তব্যের তীব্র প্রতিবাদ করছি। ইতিহাস বিকৃতি এবং গণতন্ত্রের শহীদ নূর হোসেনের আত্মদানকে অপমান করার জন্য অবিলম্বে ম র রাঙ্গাকে গ্রেফতারের দাবি জানাচ্ছি। অন্যথায় রাঙ্গাকে যেখানেই পাওয়া যাবে, সেখানেই তাকে নব্বইয়ের সংগ্রামী ছাত্রসমাজ প্রতিহত করবে।

স্বৈরাচার নিপাত গেছে, এখন তার কুলাঙ্গার প্রেতাত্মারা নিপাত যাক।

লেখকঃ চিকিৎসক ও গবেষক।